Mohiuzzaman Chowdhury

জন্ম: ১ জানুয়ারি ১৯৫৫

রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী এ. এম. এম. মহীউজ্জামান চৌধুরী (ময়না) ১ জানুয়ারি ১৯৫৫ সনে ঢাকা শহরে জন্ম গ্রহণ করেন। বর্তমানে ১২/এফ ওয়েস্ট এন্ড স্ট্রিট, ধানমন্ডি, ঢাকা ১২০৫ ঠিকানায় স্থায়ী ভাবে বসবাস করছেন।

মহীউজ্জামান চৌধুরীর সেজো ভাই শামসুজ্জামান চৌধুরী, ৭০ দশকে বেতার ও টেলিভিশনে নিয়মিত সঙ্গীত শিল্পী ছিলেন। সেজো ভাই শামসুজ্জামান চৌধুরী ও মেজোবোন ইয়াসমীন চৌধুরীকে তাদের বড় ভাই মনিরুজ্জামান চৌধরী বাড়ীতে গান শেখাতেন। (মহিউজ্জামান তাদরে সাথে আসরে বসতে বসতে একদিন সঙ্গীতের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েন। পারিবারিক তালিমটুকু সম্বল করে ১৯৭৩ সালে ছায়ানটে তার সঙ্গীত শিক্ষা শুরু। এখানে শিক্ষক হিসেবে পেয়েছেন-সনজীদা খাতুন, ওয়াহিদল হক, আবদুল আহাদ, ওস্তাদ মিথুন দে, ওস্তাদ ফুল মোহাম্মদ, ওস্তাদ নারায়ন চন্দ্র বসাক, জাহিদুর রহিম, অঞ্জলি

রায় প্রমুখ সঙ্গীত সাধককে। পরবর্তীতে তালিম নেন খোন্দকার নুরুল আলম এর কাছে। বর্তমানে এক্ষি স্বনামধন্য সরকার ও সঙ্গীত পরিচালকের কাছেই সঙ্গীতের তালিম নিচ্ছেন। সঙ্গীতের প্রতি শিল্পীর একাগ্রতা ও নিরলস সাধনা এবং বড় ভাই গভীর মমতা মাখানো উচ্চারনে গানের প্রোথিত ভাবটিকে জাগিয়ে তুলতে পারঙ্গম এই শিল্পী। স্বদেশের সীমানা অতিμম করে তিনি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে স্বীয় যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখেছেন। আমাদের কথিত সাংস্কৃতিক দীনতাকে অসার প্রমানিত করে সম্মানিত করেছে দেশকে।

কোলকাতা থেকে “আমার প্রাণের মানুষ” শিরোনামে প্রকাশিত একটি অডিও ক্যাসেট ভারতে অভূতপূর্ব সাড়া জাগিয়েছিল। ক্যাসেটটি বেস্ট সেলারের ক্ষেত্রে লতা মঙ্গেশকর এর পরবর্তী স্থানে স্থান করে নিয়েছিল। বাংলাদেশে ‘দিনের শেষে ঘুমের দেশে” ভিন্ন শিরোনামে ঐ অডিও ক্যাসেটটি প্রকাশিত হয়েছিল। এভাবেই ব্যাপক গণমানুষের অকৃপন ভালবাসায় সিক্ত হয়েছেন এবং হচ্ছেন মহীউজাজমান চোধুরী।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগে স্নাতকোত্তর। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রে উপপরিচালক (অনুষ্ঠান) পদে দায়িত্ব পালন করছেন। বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের নিয়মিত শিল্পী। তিনি চলচিত্রেও পে ব্যাক করেছেন। প্রবাসীদের আমন্ত্রণে স – ুদূর অ্যামেরিকার, নিউ ইয়ার্ক, মিশিগান, ভার্জিনিয়া, নিউজার্সি ইত্যাদি স্থানে এবং সূদুর যুক্ত রাজেও ও সঙ্গীত পরিবেশন করেন। ১৯৯৯ সালে বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতিক দলের প্রতিনিধি হয়ে ভারত সফর করেন। বিবাহীত জীবনে একমাত্র কন্যা কনিকা জামান চৌধুরী (উর্বী) ও একমাত্র পুত্র হাসিন জামান চোধুরী (অর্থ) এর জানক।

তার স্ত্রী শায়লা হাবিব একটি বহুজাতিক কোম্পানীতে কর্মরত।

বেশ কয়েকবার পেশা বদল করেছেন মহীউজ্জ্মান চৌধুরী কিন্তু সঙ্গীতের ধারাবাহিকতায় কখনো ছেদ পড়েনি, পড়বেও না। কারণ সঙ্গীত তার ধ্যান, তাঁর পারের কড়ি

Enter your keyword