Bengal Arts Programme

A Glimpse of our Collection

Abul Khair’s (Chair, Bengal Foundation) own acquisition, together with the Foundation’s collection, has over the years, created an art repository of many thousands of works by modern painters of the region. It is considered to be the largest and most significant repository in the country. The collection is being duly archived for future research and inquiry. Bengal Museum of Arts and Crafts, the first of its kind, is envisioned as a project in the near future to be built in the suburbs of Dhaka, where this substantive collection will be on public display.
Bengal Foundation also has a noteworthy collection of photographic, audio and video material from the nineties to the present, relating to visual artists, singers and significant cultural events. The material is being catalogued for future research, investigation and accession by the public.

Bengal Foundation Collection

Abul Khair bought his first painting back in 1970. He had the privilege of being tutored in art and culture by the eminent academic, social scientist and man of letters, Professor Abdur Razzaque, who also happened to be his uncle. Professor Razzaque, who was held in high esteem for his learning and wisdom, knew most of our first generation artists, including Shilpacharya Zainul Abedin, with whom he had a special friendship. He introduced young Abul Khair to these artists, who took him into confidence and inspired him to start his collection. Bengal Foundation emerged in the late eighties and established the Bengal Gallery of Fine Arts some thirteen years later. It is no exaggeration to say that the patronage of Bengal Gallery has helped many of our artists find their place in the country’s art scene.

For twenty two years now, Abul Khair’s brainchild, Bengal Foundation, has taken up many projects to promote the arts in this country. Besides other activities, the Foundation has been assiduous in building up a collection by retaining artworks generated in art camps, held at home and abroad. These paintings form the core of the Bengal Foundation Collection. The rich collection that has been put together over the years by Abul Khair and his Foundation includes some of the finest paintings of the region, by artists such as Jamini Roy, Nandalal Bose, Zainul Abedin, Saifuddin Ahmed, S M Sultan, Quamrul Hassan, Mohammad Kibria, Aminul Islam, Murtaja Baseer, Qayyum Chowdhury and Kazi Abdul Baset. Artworks by new and promising young artists have also found their way into the collection.

Zainul Abedin (1914-1976)

Zainul Abedin
Rebel Cow . 1966
Brush and ink . 41.5 x 54.5 cm

Zainul Abedin reverently called the Shilpacharya or the guru of art, is the architect of modern art movement in Bangladesh that began with the setting up of the Government Art Institute in 1948. He was the founding principal of the institute and remained its principal until his retirement in 1967. For his visionary qualities and artistic achievements, he has always been the undisputed leader of our artist community.
Zainul Abedin was born in Kishoreganj in 1914. He got himself admitted in Calcutta Government Art School in 1933 and joined the faculty of the art school in 1938. The same year he did a series of watercolours on the river Brahmaputra that earned him the Governor’s Gold Medal in an All-India exhibition. When he moved to Dhaka after the Partition he felt the lack of an art school in this region. Soon, with the interests of the entire community in mind, he set about trying to make art education available to all, even though this hampered his own work. He was determined to remedy the lack of taste evident in our society by awakening the aesthetic sense of the people. Since he could not achieve this only through his own artistic activity, he directed his attention to the creation of institutions. The large volume of art being produced in Bangladesh today will give us an indication of the extent to which his dream has been realized. His students and succeeding generations of artists set up art schools in various parts of the country– Chittagong, Rajshahi, Khulna, Bogra, Narayanganj. Zainul started an art school for children on the premises of the Dhaka Art Institute. The role of that modest venture in inspiring a trend cannot be denied; the keen and widespread interest in art noticeable among children today is evidence of that. In this way the seed that he planted in the field of art education has grown into a magnificent tree. Zainul was not only interested in the development of modern art but sought also to develop the country’s folk arts and crafts and unite them in a creative fusion with modern art. With this end in view he set up the Sonargaon Folk Arts and Crafts Foundation in 1975. The same year he founded the Zainul Sangrahashala in his home town Mymensingh. Zainul was awarded Honorary D Litt by the University of Delhi, India, and was appointed National Professor in 1974. He received (posthumously) the Independence Day Award in 1977. Bangladesh Shilpakala Academy conferred on him a special award in 1998, to mark the 50th anniversary of fine art in the country. Zainul Abedin died in May 1976.
A month-long festival marking the Shilpacharya’s 90th birth anniversary was organised jointly by Bangladesh National Museum, Bangladesh Shilpakala Academy and Bengal Foundation, in 2004. The highlight of the event was an art exhibition featuring 574 of Zainul Abedin’s works, of which 180 were from the Abul Khair Collection. The exhibition was spread over three venues, the Bangladesh National Museum Gallery (including Zainul Sangrahashala at Mymensingh), the National Art Gallery at Bangladesh Shilpakala Academy Gallery, and Bengal Gallery of Fine Arts. A seminar, children’s drawing competition, photography exhibition, crafts fair and folk music festival were included in the month long festival. Bengal Foundation produced a brief documentary on Zainul Abedin (directed by Fahmida Munni) and published a 164 page catalogue titled A Saga of Man and Nature: The Art of Zainul Abedin, featuring all the exhibited works.

S M Sultan (1923-1994)

S M Sultan
Char Dakhal . 1986
Oil . 76 X 242 cm

S M Sultan was born in Narail in 1923. With the help of noted art historian and critic Shahed Suhrawardy, Sultan enrolled in the Calcutta Art School but left after three years without completing a degree. That marked the beginning of a colourful and bohemian life that took him to many different cities. The muscular sinewy village folk appearing in Sultan’s paintings contrast strongly with the emaciated and weak figures that people rural Bengal. The ensuing tension between expectation and reality, exploitation and justice, violence and contentment, sets the tone for his epic narratives. Sultan participated in an exhibition at Victoria Embankment in Hampstead, London, along with Picasso, Dali, Braque, Klee and others in 1956. He received the Ekushey Padak (1982), the Independence Day Award (1993), the Bangladesh Charushilpi Sangshad Honour (1986) and from 1984, became a Resident Artist of the Bangladesh Shilpakala Academy. In 1998, the Academy conferred on him a special award to mark the 50th anniversary of fine art in the country.
Sultan built a school for children, and a menagerie in his home town Narail. There he established the Kurigram Fine Arts Institute in 1969. He founded, with others, the Charupeeth School of Art in Jessore in 1973. Except for occasional visits to Dhaka where he had his first major exhibition in 1976, Sultan lived in Narail for the most part. He had close ties with the founder chairman of Bengal Foundation Professor Abdur Razzak and his nephew Abul Khair. Sultan died in 1994 in Narail.

SM Sultan
Year: 1986
Size: 162 x 203 cm
Medium: Oil on Hessian

Second Sight
This is the only painting in Sultan’s oeuvre in which he has juxtaposed two significant artistic characteristics. Similar in perspective to a cinema-still that has been shot from a helicopter, the artist gives a view from above of a field scattered with the corpses of farmers and their entire families. The other significant point is that this is the first work by sultan in which the mighty are prostrate and lifeless; a description of the silent trauma of death. Bodies are spread out in ordered rows, their limbs and torsos creating a kind of pseudo-perspective. In the centre of this corpse-filled image is the body of an old man; perhaps the sage and protector of the new-destroyed community. Centred around his dazzling, blue-black corpse, are the bodies of others: women, men and children of all ages. The maximum amount of space has been given to convey the artist’s message of the unending tally of deaths.

Collector Abul Khair is aware of the context in which the painting was conceived by the artist. Deeply moved by the aftermath of the cyclone of 1986, Sultan felt compelled to represent it in a painting.

সুলতানের ছবি প্রসঙ্গে

SM Sultan (1923-1994)
Photo © Shahidul Alam / DRIK

আবদুর রাজ্জাক
জাতীয় অধ্যাপক

জসীমউদ্দীন, জয়নুল আবেদিন, এস এম সুলতান – এঁদের শিল্পকর্ম একান্তই বাংলাদেশের। একান্তই বাংলাদেশের জল-হাওয়াতেই এঁদের শিল্পকর্মের পরিপুষ্টি। অন্য কোনো জমিনে চাষ করে কেউ ফসলের শিল্পকর্মের পরিপুষ্টি, অন্য কোনো জমিনে চাষ করে কেউ ফসলের এই রং, এই রস ফুটিয়ে তুলতে পারতো কি না সন্দেহ। এর একটা কারণ এই হতে পারে যে, এদের মানসিকতা, দৃষ্টিভঙ্গি সবই বাঙালির – অবশ্যই বলতে হবে অসাধারণ বাঙালির।

বাংলাদেশ কখনো বর্ণাশ্রম ধর্ম মেনে নেয়নি। বাঙালি ব্রাহ্মণ এবং অন্য ব্রাহ্মণের মধ্যে এখনো জল চল নয়। বাঙালি মুসলমানদের মধ্যে আশরাফ-আতরাফও নিতান্তই কথার কথা। তা সুলতানের ছবির জগতে যাদের দেখি, তারা বাংলার সাধারণ মানুষ। এই সব সাধারণ মানুষকে অসাধারণ করে দেখার ক্ষমতাই সুলতানের ছবির অন্যতম বৈশিষ্ট্য। এই ছবিসমূহের মধ্য দিয়ে শিল্পী একটি ‘মেসেজ’ পাঠিয়েছেন। সুলতানের ছবি যাঁরা দেখেছেন, তাঁরা সজ্ঞানে অতটা অনুভব করতে না পারলেও অন্তরে অন্তরে মেসেজটি গ্রহণ করতে কোনো বেগই পেতে হয়নি। বাংলার মানুষের প্রতি সুলতানের স্বতোৎসারিত ভালোবাসা এবং অগাধ শ্রদ্ধাবোধ থেকেই সৃষ্টি হয়েছে এই ‘মেসেজ’।

সুগভীর ইতিহাসবোধ এবং ইতিহাসের প্রতি একটা অকুণ্ঠ আনুগত্য না থাকলে কারো তুলি এ রকম সৃষ্টি করতে পারে না, সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাছাড়া সুলতানের ছবির বিষয়ে আরো একটা বিষয় ভেবে দেখার আছে, সুলতান বাংলা ও বাঙালি বিষয়বস্তু নিয়ে যে সকল ছবি এঁকেছেন, সেগুলো দেশকালের গ-ি অতিক্রম করে সর্বমানবের উজ্জ্বল উত্তরাধিকারে পরিণত হয়েছে।
এ রকম একটা গুজব সমস্ত দুনিয়াতেই চলে আসছে যে, শিল্পীর শিল্পকর্ম আর শিল্পীর ব্যবহারিসুলতানের ছবি প্রসঙ্গে

আবদুর রাজ্জাক
জাতীয় অধ্যাপকজসীমউদ্দীন, জয়নুল আবেদিন, এস এম সুলতান – এঁদের শিল্পকর্ম একান্তই বাংলাদেশের। একান্তই বাংলাদেশের জল-হাওয়াতেই এঁদের শিল্পকর্মের পরিপুষ্টি। অন্য কোনো জমিনে চাষ করে কেউ ফসলের শিল্পকর্মের পরিপুষ্টি, অন্য কোনো জমিনে চাষ করে কেউ ফসলের এই রং, এই রস ফুটিয়ে তুলতে পারতো কি না সন্দেহ। এর একটা কারণ এই হতে পারে যে, এদের মানসিকতা, দৃষ্টিভঙ্গি সবই বাঙালির – অবশ্যই বলতে হবে অসাধারণ বাঙালির।

বাংলাদেশ কখনো বর্ণাশ্রম ধর্ম মেনে নেয়নি। বাঙালি ব্রাহ্মণ এবং অন্য ব্রাহ্মণের মধ্যে এখনো জল চল নয়। বাঙালি মুসলমানদের মধ্যে আশরাফ-আতরাফও নিতান্তই কথার কথা। তা সুলতানের ছবির জগতে যাদের দেখি, তারা বাংলার সাধারণ মানুষ। এই সব সাধারণ মানুষকে অসাধারণ করে দেখার ক্ষমতাই সুলতানের ছবির অন্যতম বৈশিষ্ট্য। এই ছবিসমূহের মধ্য দিয়ে শিল্পী একটি ‘মেসেজ’ পাঠিয়েছেন। সুলতানের ছবি যাঁরা দেখেছেন, তাঁরা সজ্ঞানে অতটা অনুভব করতে না পারলেও অন্তরে অন্তরে মেসেজটি গ্রহণ করতে কোনো বেগই পেতে হয়নি। বাংলার মানুষের প্রতি সুলতানের স্বতোৎসারিত ভালোবাসা এবং অগাধ শ্রদ্ধাবোধ থেকেই সৃষ্টি হয়েছে এই ‘মেসেজ’।

সুগভীর ইতিহাসবোধ এবং ইতিহাসের প্রতি একটা অকুণ্ঠ আনুগত্য না থাকলে কারো তুলি এ রকম সৃষ্টি করতে পারে না, সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাছাড়া সুলতানের ছবির বিষয়ে আরো একটা বিষয় ভেবে দেখার আছে, সুলতান বাংলা ও বাঙালি বিষয়বস্তু নিয়ে যে সকল ছবি এঁকেছেন, সেগুলো দেশকালের গ-ি অতিক্রম করে সর্বমানবের উজ্জ্বল উত্তরাধিকারে পরিণত হয়েছে।
এ রকম একটা গুজব সমস্ত দুনিয়াতেই চলে আসছে যে, শিল্পীর শিল্পকর্ম আর শিল্পীর ব্যবহারিক জীবন এক নয়। রবীন্দ্রনাথ তো বলেছেনই, ‘কাব্য পড়ে যেমন ভাবো কবি তেমন নয় গো’, কিন্তু এস এম সুলতান সম্বন্ধে একথা একেবারেই খাটে না। সুলতানের ক্ষেত্রে বিষয় এবং বিষয়ী, এ-দুয়ের মধ্যে কোনো ফারাক নেই। সুলতানের সংজ্ঞাবহির্ভূত জীবনপ্রণালি থেকেই এই সব অপূর্ব চিত্রমালা সম্ভাবিত হয়ে উঠেছে।

ঝ গ ঝঁষঃধহ ধহফ ঐরং চধরহঃরহমং
জবঢ়ৎরহঃবফ ভৎড়স ঃযব পধঃধষড়মঁব ড়ভ ঃযব বীযরনরঃরড়হ, ড়ৎমধহরুবফ নু এবৎসধহ ঈঁষঃঁৎব ওহংঃরঃঁঃব, উযধশধ
ঔধহ ১৯৮৭ . ঞযব বীযরনরঃরড়হ ধিং ংঢ়ড়হংড়ৎবফ নু ইবহমধষ এৎড়ঁঢ় ক জীবন এক নয়। রবীন্দ্রনাথ তো বলেছেনই, ‘কাব্য পড়ে যেমন ভাবো কবি তেমন নয় গো’, কিন্তু এস এম সুলতান সম্বন্ধে একথা একেবারেই খাটে না। সুলতানের ক্ষেত্রে বিষয় এবং বিষয়ী, এ-দুয়ের মধ্যে কোনো ফারাক নেই। সুলতানের সংজ্ঞাবহির্ভূত জীবনপ্রণালি থেকেই এই সব অপূর্ব চিত্রমালা সম্ভাবিত হয়ে উঠেছে।

তিনি আমার স্বজন ছিলেন

আবুল খায়ের
অধ্যাপক আবদুর রাজ্জাক ভালো ও মন্দের তফাত করতে পারতেন স্পষ্টভাবে। তিনি যাকে ভালো মনে করতেন তাকে মমতা দিয়ে পরিচর্যা করতেন। হয়তো সে কারণেই সাহিত্যিক আহমদ ছফা, শিল্পী সুলতানকে ফুলার রোডের বাড়িতে নিয়ে এসেছিলেন। সুলতান মানুষ হিসেবে নির্মোহ ও আত্মভোলা ছিলেন, কাজে নিবিষ্ট থাকতেন গভীরভাবে। প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি তাঁকে লোভাতুর করেনি, গাঁও-গেরামের সাধারণ সরল জীবনে
তিনি আবিষ্ট ছিলেন। তাই আহমদ ছফা সংরক্ষণের তাগিদ থেকে সুলতানকে অধ্যাপক রাজ্জাকের সঙ্গে সম্পর্কিত করেছিলেন। সুলতানের সঙ্গে রাজ্জাক সাহেবের নিবিড় সখ্য তৈরি হলো অল্প সময়েই। তাঁরা কয়েক ঘণ্টা কাটিয়ে দিতেন একনাগাড়ে। ধারণা করি, সাধারণ জীবনে সুলতানের এখতিয়ার ও ঘনিষ্ঠতা অধ্যাপক রাজ্জাককে মুগ্ধ করেছিল। সৌভাগ্য যে, সে-সময়ে আমি পরিবারের সঙ্গে ফুলার রোডের বাড়িতে থাকি। সেটা ছিল সত্তরের দশকের শুরু। স্বাধীনতাপ্রাপ্তির কয়েক বছর পরে শিল্পকলা একাডেমী সুলতানের একটি একক প্রদর্শনীর আয়োজন করেছিল। সে প্রদর্শনীর মাধ্যমেই বলা চলে সুলতান পরিচিত হয়ে উঠলেন। প্রদর্শনী থেকে বেঁচে যাওয়া ৩০-৪০টি ছবি সুলতান সোনারগাঁয়ের একটি বাড়িতে নিয়ে গিয়েছিলেন। কিছুদিন সেখানে থাকার চেষ্টা করেছিলেন, পরে মন উঠে যায়। আবার ফেরত গেলেন নড়াইলে। ছবিগুলো রেখে গেলেন আমাদের বাড়িতে। মাঝে মাঝেই ঢাকায় আসেন। অধ্যাপক আবদুর রাজ্জাক, যিনি আমার চাচা, সুলতানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে উঠেছেন এর মধ্যে। তিনি সুলতানকে জয়নুল আবেদিন, জসীমউদ্দীন প্রমুখের সমান মর্যাদা দিতেন।
সুলতান খুব সহজেই ছোট-বড় সকলের সঙ্গে মিশে যেতে পারতেন। আমার মা, বড় ছেলে কুশলসহ সবার সঙ্গেই তাঁর নিকট সম্পর্ক ছিল। খুব তাড়াতাড়ি তিনি আমাদের পরিবারের সদস্য হয়ে গিয়েছিলেন। আমি বা চাচা বাড়িতে অনুপস্থিত থাকলেও সুলতানের কোনো সমস্যা হতো না। সুলতানের বুন্ধরাও আমাদের বাড়িতে হরহামেশা যাতায়াত করতেন। আমার বাড়ির সবচেয়ে বড় দুটি গাছ সুলতান নিজে রোপণ করেছিলেন। আমার ছেলেমেয়েরা সে গাছের ছায়ায় বেড়ে উঠছে, আমরা আমাদের নিজস্ব সময়ে সে গাছ দুটির সঙ্গে সুখ-দুঃখের কথা বলি, আসলে যেন সুলতানকেই শোনাই।
সুলতানের যক্ষ্মা হলো আশির দশকের মাঝামাঝি। সে-সময়ে রাজ্জাক সাহেবের শরীরের অবস্থাও ভালো ছিল না। আমরা ব্যাংকক গেলাম সুলতানের চিকিৎসার জন্য। সেখানকার সুমিতভেজ হাসপাতালে অধ্যাপক রাজ্জাক ও সুলতানের চিকিৎসা হবে। হাসপাতালে যাওয়ার আগের দিন আমরা কিছু পোশাক কিনলাম। সুলতান উৎফুল্ল­ হয়ে নতুন পোশাক পরে ডাক্তারের কাছে গেলেন। ডাক্তার একপর্যায়ে আমাকে ডেকে ভেতরে নিয়ে গেলেন। সেখানে সুলতানকে দেখলাম প্যান্ট নিয়ে মহাবিপদে পড়েছেন। বেল্ট খুঁজে না পেয়ে সুলতান দড়ি দিয়ে প্যান্ট বেঁধেছিলেন, তাতে সব জট পাকিয়ে গেছে – ঘটনাটা গুরুত্বপূর্ণ এ কারণে যে, সুলতান এমন বৈশিষ্ট্যেরই ছিলেন, কোনো মোহ যাকে আটকাতে পারেনি, সস্তা খ্যাতির জন্য লালায়িত ছিলেন না, ভীষণ নিষ্ঠাবান মানুষ ছিলেন।

তবে কাজের প্রতি অবহেলা করেননি। সুলতান শিল্পীর চেয়েও বড় ছিলেন মানুষ হিসেবে। খেটে খাওয়া মানুষকে যত বড় করে এঁকেছেন তার চেয়েও বড় করে তাদেরকে ঠাঁই দিয়েছিলেন নিজের মনে। শ্রমজীবী মানুষের সবটুকুই তিনি বুঝতে পেরেছিলেন। তাদের হাসি-কান্না, আচার-বিচারে তাঁর ছিল একান্ত অধিকার। ক্ষুধা-দারিদ্র্যে ওরা তাঁকে আরো আপন করে পেত।
শিশুস্বর্গে তিনি ছোটদের ছবি আঁকা শেখানো আরম্ভ করতেন ভোর ছয়টায়। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, ভোরেই ওদের ক্ষুধা পায়, ওরা কাঁদতে থাকে। তখনই যদি চিঁড়া আর গুড়ের সঙ্গে তুলি ও কলমটা ধরিয়ে দেওয়া যায় তাহলে হয়তো শেখাটা হয়ে যাবে। সুলতানের অনেক বড় একটা সংসার ছিল। সেখানে বিড়াল, বেজি, ময়না-টিয়া, সাপ যেমন ছিল, শিষ্য-শিষ্যাও ছিল। তাদের খাবার জোগাড়ে সুলতানের ছবি বিক্রির সবটা চলে যেত। তার ওপর আবার ছিল গান-বাজনার ঝোঁক। এসব খরচ মেটাতে তখন কয়েকজন তাঁকে সহযোগিতা করতেন। আমার সৌভাগ্য, সুলতান আমার কাছ থেকে কিছু নিতে কখনো দ্বিধা করতেন না। বরং যে কোনো প্রয়োজনে আমার কথাই তাঁর প্রথম মনে পড়ত। আমার আত্মীয় রতন প্রায়ই এটা-সেটা নিয়ে নড়াইলে যেত। সুলতানের সঙ্গে আমার একটা অধিকারের সম্পর্ক দাঁড়িয়ে গিয়েছিল। ভালোবাসার দাবিতে আমরা নিজেদের আবদার মিটিয়েছি অনেকবার। সেই সাহসে ভর করেই আমি ’৮২ সালে তাঁর নামে ব্যাংকে একটি নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা ফিক্সড ডিপোজিট করে দিই।

বড় কিছু বা ভালো কিছুকে সম্মান দেওয়ার সামর্থ্য আমি পেয়েছিলাম অধ্যাপক রাজ্জাকের কাছ থেকে। সুলতানের ছবি তো বটেই, জীবনের প্রতি তাঁর সরল অথচ মহৎ দৃষ্টিভঙ্গি আমাকে আজও জীবন সম্পর্কে আস্থাবান করে তোলে। জটিল জীবনের পাঁকে আমাদের নাস্তানাবুদ চেহারাটা যখন চোখের সামনে ভেসে ওঠে তখনই সুলতানকে বারবার ফিরে পাওয়ার আকাক্সক্ষা জাগে।

সুলতান ভাই মারা যাওয়ার আগের মাসে আমাকে একটা চিঠি পাঠিয়েছিলেন; তখনো ভাবতে পারিনি এত তাড়াতাড়ি চলে যাবেন। অসুস্থ আছেন জানতাম, না হলে অন্যকে দিয়ে চিঠি লেখাতেন না। চিঠি পাওয়ার পরের সময়ে প্রস্তুত হচ্ছিলাম তাঁকে নিয়ে আবার বিদেশের ভালো কোনো হাসপাতালে যাওয়ার কিন্তু চলে গেলেন তার আগেই। যা দিয়ে গেছেন তার চেয়েও বেশি কিছু দেওয়ার ছিল নিশ্চয়ই, নয়তো বৃথাই বাঁচতে চাওয়ার মানুষ তিনি ছিলেন না। আমাদের এখন জানতে হবে কতটুকু কাজ তিনি অসম্পূর্ণ রেখে গেছেন এবং তাগিদ থাকুক সেটুকু সম্পূর্ণ করবার।

Quamrul Hassan (1921- 1988)

Quamrul Hassan
Cattle in the Moonlight . 1975
Oil on canvas . 79 x 156 cm

Quamrul Hassan was born in Kolkata in 1921 and graduated from the Govt Institute of Arts, Kolkata, in 1947. He played a leading role in establishing the Institute of Fine Arts, along with Shilpacharya Zainul Abedin, and taught there till 1960. The East Pakistan Small and Cottage Industries was established under his leadership in 1960. He worked there as the Director of the Design Centre till his retirement in 1978. Quamrul received the President’s Gold Medal (1965), the Comilla Foundation Gold Medal (1977), the Independence Day Award (1979), Bangladesh Charushilpi Sangsad Honour (1984) and Kazi Mahbubullah Trust Gold Medal (1987). To mark the 50th anniversary of fine art in the country, Bangladesh Shilpakala Academy conferred on him a special award in 1998. Yugoslavia (1985) and Bangladesh (1986) have issued commemorative stamps using his paintings Tin Kanya and Naior respectively. Quamrul’s subjects range from colourful pictures depicting a pristine, rural Bengal to a politically corrupt, degenerate one. His fierce political cartoons, especially his poster depicting the Pakistani military ruler Yahya Khan as a demon, drew a great deal of attention. His work inspired people in civil movements and demonstrations, particularly during the Liberation War of 1971. Quamrul was the Director of the Arts and Design Department of the Bangladesh government formed in exile in 1971. The artist combined traditional pata painting techniques and folk motifs in a modern paradigm and came to be known as ‘Patua Quamrul Hassan’. Solo exhibitions of his paintings were held in Dhaka (1955, 1964, 1973, 1975, 1991, 1995), Rangoon (1975), Rawalpindi (1969) and London (1979). A prolific painter, he worked as a freelance artist till his death in February 1988.

Safiuddin Ahmed

Safiuddin Ahmed
Untitled . 2000
Oil . 100 X 70 cm

Safiuddin Ahmed (b. 1922, Kolkata) the only surviving member of the founding circle of the art institute, is still active even though he turned 88 in 2010. His constant preoccupation with art has set a unique example for other artists. In all these years he has participated in numerous group shows, but hitherto he has had only five solo shows – in 1959 in London, in 2008, 2009 and 2010 at the Bengal Gallery, and in Kolkata in 2009.
Safiuddin studied in the Calcutta Government Art School (1936-42), and also completed his teacher’s training course there (1944-46). Among his teachers were Mukul De, Basantakumar Ganguly, Ramendranath Chakravarty, Atul Bose, Prahlad Karmakar, Rissen Mitra and Abdul Moin. He taught lithography in the government art school in Kolkata, during 1946-47. In Calcutta in the pre-partition days he had done both painting and woodcut. Later, in the 1950s he went to England and took further training in etching. He taught in the Institute of Fine Art, Dhaka, until his retirement in 1979. Safiuddin’s paintings and prints portray, often in swirling vigorous forms and motifs, spectacular symbols such as eyes, fishing nets and boats. He continuously evokes these images to articulate his understanding of the disquiet and anxiety of the time. Safiuddin received the President’s Gold Medal from the Academy of Fine Arts, Kolkata (1945), the Darbhanga Maharaja’s Gold Medal from the Shilpakala Parishad, Patna, India (1947), the President’s Medal for Pride of Performance in Fine Arts in Pakistan (1963), the Ekushey Padak (1978), the Bangladesh Charushilpi Sangsad Honour (1984) and the Independence Day Award (1996). To mark the 50th anniversary of fine art in the country, Bangladesh Shilpakala Academy conferred a special award on Safiuddin Ahmed in 1998.

Mohammad Kibria (1929-2011)

Mohammad Kibria
Untitled . 1994
Oil on canvas . 91 x 180 cm

Kibria (b. 1929, Birbhum, West Bengal) a forerunner of the modernist movement in painting, has been a significant force in shaping the destiny of art in this country. The quintessential modernist, not only had he led the ranks in setting the course for visual art in the 50s but also won international acclaim for Bangladesh art. Kibria’s exhibition set off Bengal Gallery of Fine Arts on a propitious start in 2000. Kibria graduated from the College of Arts and Crafts in Kolkata (1950) and later studied painting and graphics at Tokyo University of Fine Arts (1959-62). His success was initiated by receiving the first prize in painting in the National Art Exhibitions held in 1957 and 1958. He later received the President’s Medal for Pride of Performance in Painting in 1969. His brilliant performance in Japan earned him the Starlem Award at the First Young Asian Artists Exhibition in Tokyo (1959) and an award in the All Japan Print Exhibition (1960). At home he received the Silver Jubilee Award of the Bangladesh College of Arts and Crafts (1973), the Ekushey Padak (1983), the Bangladesh Charushilpi Sangsad Honour (1985), and the Independence Day Award (1999). To mark the 50th anniversary of fine art in the country, Bangladesh Shilpakala Academy conferred a special award on Mohammad Kibria in 1998. Kibria was a member of the international jury in the 12th Kuwait Biennale. He received the Japanese Foreign Minister’s Honour award in 2002. After 45 years of teaching Kibria was made Professor Emeritus of the Faculty of Fine Arts, University of Dhaka, in 2008. He passed away in June 2011.

Aminul Islam (1931-2011)

Aminul Islam
Untitled . 1999
Oil on canvas . 100 X 70 cm

A modernist painter and mosaicist, Aminul Islam (b. 1931, Dhaka, d. 2011), is also the forerunner of critical writing on art and aesthetics. After graduation from the Government Art Institute in Dhaka in 1953, he moved to Florence for higher study in art. Between 1953 and 1956 he participated in many group shows in Europe. He began to chart a new course that took him beyond sterile conventions to modernist expressions with forms, colour and perspective. His left-leaning ideologies would not allow him to entirely banish figures from his canvases. An autobiographical streak runs through many of his early works. In course of time his work became increasingly geometrically organized. Aminul taught at the art institute for 28 years and retired as Principal in 1984. He received the Grand Imperial Prize at the 5th Tehran Biennale (1966), Bangladesh Shipakala Academy Award in the 2nd National Art Exhibition (1976), the Ekushey Padak (1981), the Bangladesh Charushilpi Sangsad Honour (1985) and the Independence Day Award (1988). To mark the 50th anniversary of fine art in the country, Bangladesh Shilpakala Academy conferred a special award on Aminul Islam in 1998. Aminul authored a biographical essay and in his writings, critiqued the development of art in the region. A book of his drawing and art writing titled Aminul Islam: Drawing and Art Writing 1950-2000 edited by Osman Jamal was published by Bengal Foundation in 2002. Aminul Islam passed away in July 2011, leaving behind a courageous legacy for successive generations.

Qayyum Chowdhury
Barshay Ekakini . 2006
Acrylic on canvas . 92 X 92 cm

Murtaja Baseer
Yellow and Violet . 2006
Acrylic on canvas . 92 X 92 cm

Rafiqun Nabi
Fishermen at Rest. 2006
Oil on canvas . 183 X 122 cm

Monirul Islam
Venetian Fiesta . 2005
Acrylic on paper . 56 X 76 cm

Shahabuddin Ahmed
Bangabandhu and Bhashani . 1989
Oil on canvas . 123 X 90 cm

Kazi Ghiyasuddin
Sound of Night . 2010
Oil on canvas . 136 X 136 cm

Rabindranath Tagore
25 X 53 cm

Gagenendranath Tagore
26 X 35 cm

Nandalal Bose
16 x 26 cm

Jamini Roy
41 x 51 cm

Rokeya Sultana
Title: Untitled
Year: 2003
Size: 48.00 x 64.50 cm/ 18 .9 x 25.39 inch/ 1.5 7 x 2.12 foot
Media: Mixed Media

Shishir Bhattacharjee
Title: No Title
Year:  2002
Size: 86.36 x 86.36 cm/ 34 x 34 inch/ 2.83 x 2.83 foot
Media: Acrylic on canvas

Nazlee Laila Monsur
Title: Elevator
Year 2005
Size: 132.08 x 101.60 cm/ 52 x 40 inch/ 4.3 3 x 3.33 foot
Media: Acrylic on canvas

Murtaja Baseer
Title: Som nam bular bullad
Year: 1959
Size: 111.00 x 94.00 cm/ 43 .7  x 37.01inch/ 3.6 4 x 3.08 foot
Media: Oil on canvas

Ronni Ahmed
Title: Octopus and the Boat of Lemon Song
Year: 2010
Size: 178.00 x 117.00cm/ 70 .08 x 46.06 inch/ 5.84 x 3.84 foot
Media: Acrylic on canvas

Mahbubur Rahman
Title: Portrait from the Market 2
Year: 2015
Size: 60 X 44X 55 cm
Media: Crystal, metal

Enter your keyword